মস্কো। ইউক্রেনে হামলার পর রাশিয়ার ওপর আরোপিত আন্তর্জাতিক নিষেধাজ্ঞার প্রভাব দৃশ্যমান হতে শুরু করেছে। 100 বছরের মধ্যে প্রথমবারের মতো, রাশিয়া তার বৈদেশিক ঋণ সময়মতো পরিশোধ করতে পারেনি। রাশিয়া একটি খেলাপি হয়ে গেছে বলে জানা গেছে। ব্লুমবার্গের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, রাশিয়ার বৈদেশিক ঋণ পরিশোধের সময়সীমা রোববার শেষ হয়েছে। সুদ হিসাবে তাকে 100 মিলিয়ন ডলার দিতে হয়েছিল। এর সঙ্গে তাকে দেওয়া এক মাসের স্থগিতাদেশও শেষ হয়ে গেল। তবে রাশিয়া নিজেকে খেলাপি হিসেবে বিবেচনা করতে অস্বীকার করেছে।

রাশিয়া গত ২৬শে জুন বিদেশী ঋণের সুদ বাবদ ১০০ মিলিয়ন ডলার পরিশোধ করার কথা ছিল, কিন্তু তা পরিশোধ করতে ব্যর্থ হয়েছে। এর মাধ্যমে তিনি 1913 সালের পর প্রথমবারের মতো খেলাপি হয়েছেন। এখানে অর্থমন্ত্রী আন্তন সিলুয়ানভ বলেছেন, আমাদের টাকা আছে, কিন্তু কৃত্রিম সংকটের কারণে এই পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে।

ভিডিও: রাশিয়া ইউক্রেনের ভিড় শপিং মলে ক্ষেপণাস্ত্র নিক্ষেপ করেছে, এ পর্যন্ত 16 জন নিহত হয়েছে

সীমাবদ্ধতার কারণে অর্থ প্রদান করতে অক্ষম
রাশিয়া বলেছে যে বিদেশী ঋণ পরিশোধের জন্য তার কাছে পর্যাপ্ত অর্থ রয়েছে, কিন্তু পশ্চিমা দেশগুলির নিষেধাজ্ঞার কারণে আন্তর্জাতিক ঋণদাতাদের শোধ করতে অক্ষম। অর্থমন্ত্রী সিলুয়ানভ গত মাসে বলেছিলেন যে আমাদের কাছে টাকা আছে। রাশিয়ান জনগণের জীবনযাত্রার মানের কোন পার্থক্য থাকবে না।

রাশিয়াকে দিতে হবে ৪০ বিলিয়ন ডলার
রাশিয়াকে প্রায় 40 বিলিয়ন ডলারের বৈদেশিক বন্ড দিতে হয়েছে। এর অর্ধেকই বৈদেশিক ঋণ। ইউক্রেন যুদ্ধের কারণে আরোপিত নিষেধাজ্ঞার কারণে রাশিয়ার বেশিরভাগ বৈদেশিক মুদ্রা এবং স্বর্ণের রিজার্ভ বিদেশে বাজেয়াপ্ত হয়। এর আগে, রাশিয়া 1913 সালে বলশেভিক বিপ্লবের সময় একটি খেলাপি হয়ে উঠেছিল। সে সময় রাশিয়ার জার সাম্রাজ্যের পতন ঘটে এবং সোভিয়েত ইউনিয়ন গঠিত হয়।

‘রাশিয়ার বিরুদ্ধে লড়াইয়ের জন্য ইউক্রেন সেনাবাহিনীর অবিলম্বে সহায়তা প্রয়োজন’: ভলোদিমির জেলেনস্কি জি -7 দেশকে বলেছেন

এসব দেশ রাশিয়ার সোনার ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে
জানিয়ে রাখি ব্রিটেন, আমেরিকা, কানাডা এবং জাপান রাশিয়া থেকে সোনা আমদানি নিষিদ্ধ করেছে। এখন এসব দেশে রাশিয়া থেকে সোনা আমদানি করা হবে না। জি-৭ দেশগুলোর বৈঠকে এসব দেশের মধ্যে কঠোর বিধান বাস্তবায়নে একমত হয়েছে। এই নিষেধাজ্ঞার উদ্দেশ্য ইউক্রেনের বিরুদ্ধে যুদ্ধ চালিয়ে যাওয়া রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের ওপর চাপ সৃষ্টি করা।

পেট্রোলিয়ামের পর রাশিয়া সবচেয়ে বেশি সোনা রপ্তানিকারক। 2021 সালে, রাশিয়া থেকে 12.6 বিলিয়ন পাউন্ড মূল্যের সোনা রপ্তানি হয়েছিল।

ট্যাগ: রাশিয়া

,



Source link

Previous articleসরকারকে ধাক্কা, নতুন আবগারি নীতিতে নিষেধাজ্ঞা হাইকোর্ট, জেনে নিন কী হল নতুন নীতি
Next articleঅতিরিক্ত মাল্টিভিটামিন গ্রহণ বিপজ্জনক, ভিটামিন বি 12 এর পরিপূরক ফুসফুসের ক্যান্সারের ঝুঁকি বাড়াচ্ছে

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here