দিল্লিতে জল সংকট: দিল্লিতে প্রচণ্ড গরমের মধ্যেই জলের সমস্যায় পড়েছেন বিভিন্ন এলাকার মানুষ। অনেক এলাকায় পানি না থাকায় মানুষের সমস্যা বেড়েছে। পান ছাড়াও দৈনন্দিন প্রয়োজনে পানি পাচ্ছেন না মানুষ। এমন পরিস্থিতিতে অনেক সময় মানুষ পানি কিনতে বাধ্য হয়। বহু মানুষ দিল্লি জল বোর্ডের ট্যাঙ্কারে জীবনযাপন করছেন। চাণক্যপুরীর বিবেকানন্দ ক্যাম্প, পেশওয়া রোড জেজে ক্যাম্প, আরকে আশ্রম মার্গ, মন্দির মার্গের মতো এলাকায় মানুষ জলের জন্য আকুল হয়ে আছেন।

এনডিএমসি এলাকায় ১০ দিন ধরে জলের সংকট

এনডিএমসির আওতাধীন এলাকার লোকজনের অভিযোগ, গত ১০ দিন ধরে জলের সংকট চলছে। মানুষ আগে পানীয় জল কিনে ব্যবহার করত, কিন্তু এখন তাদের দৈনন্দিন প্রয়োজনের জন্য বোতলজাত জলের উপর নির্ভর করতে হচ্ছে। পানি কিনে ব্যবহার করায় মানুষের ওপর আর্থিক বোঝাও বাড়ছে। চাণক্যপুরীর বিবেকানন্দ ক্যাম্পের বাসিন্দারা এবিপি নিউজকে বলেন, আগে কলে একটু জল আসত। কিন্তু নোংরা হওয়ায় বোতলজাত পানি কিনতে হয়।

পানি বোর্ডের ট্যাঙ্কারও তৃষ্ণা মেটাতে অপ্রতুল

এলাকার মানুষ শুধুমাত্র দিল্লি জল বোর্ডের ট্যাঙ্কারের উপর নির্ভরশীল। দিল্লি জল বোর্ডের ট্যাঙ্কার থেকে এলাকার বাড়িতে জল পৌঁছায়, তবে কখনও কখনও ট্যাঙ্কারগুলিও বেশ কয়েক দিন পরে আসে। ট্যাঙ্কার না পাওয়ায় পানির অনেক সমস্যা হচ্ছে এবং এই অবস্থাও আজ প্রচণ্ড গরমে। কলে নোংরা পানি আসায় বিপাকে মুখার্জি নগর এলাকার মানুষও। এমনকি গোল বাজার এলাকায়ও নোংরা পানি ঢুকছে মানুষের ঘরে। গোল মার্কেট রেসিডেন্ট ওয়েলফেয়ার অ্যাসোসিয়েশন বলছে, কলে নোংরা পানি আসায় মানুষ প্রতিদিনের কাজ করলেও কয়েকদিন ধরে নোংরা পানি আসা বন্ধ হয়ে গেছে।

  বুন্দি: সম্মিলিত হনুমান চালিসায় জড়িত ৫০০ ছাত্র, প্রতি বছর পাঠ হয় এই আশ্রমে

বাড়ির বাইরে বালতি, পানির বোতলের আশা

এখন এলাকার মানুষের সমস্যা বেড়েছে। শাদিপুর গ্রামেও রয়েছে পানির সংকট। লোকে বলে, তারা পানীয় জল কিনে খাচ্ছে। প্রতিদিনের প্রয়োজনেও পানি পাওয়া যাচ্ছে না। মানুষের গোসল করা এমনকি খাবার রান্না করাও কঠিন হয়ে পড়েছে। এলাকার লোকজনকে খালি বোতল, বালতি নিয়ে পানির ট্যাঙ্কারের জন্য অপেক্ষা করতে দেখা যায়। দিল্লি জল বোর্ডের ট্যাঙ্কার পৌঁছলে জলের জন্য হৈচৈ হয়। সবচেয়ে বেশি সমস্যায় পড়ে বৃদ্ধ ও শিশুদের।

দিল্লি নিউজ: রাজভবনের বাইরে বিক্ষোভে আহত দিল্লি কংগ্রেস সভাপতি অনিল চৌধুরী, হাসপাতালে ভর্তি

ভিড়ের মধ্যে পানি পাওয়া খুব কঠিন হয়ে পড়ে। লোকজন জানান, আগে সকাল-সন্ধ্যায় পানি আসত, কিন্তু গরম বাড়লে পানি আসা বন্ধ হয়ে যায়। এখন মানুষের অনেক সমস্যা দেখা দিয়েছে। এক বালতি পানির জন্য মানুষকে অনেক কষ্ট করতে হয়। কেউ পানি কিনে খাচ্ছেন, আবার কেউ কেউ এভাবে জীবনযাপন করতে বাধ্য হচ্ছেন। দিল্লির বাকি অংশেও জলের সমস্যা রয়ে গেছে। তুঘলকাবাদ বিধানসভার অনেক এলাকায় জলের সংকট ঘনীভূত হয়েছে।

  বিজেপিকে ভিআইপিদের কটাক্ষ - 'প্রথমে অগ্নিপথের নামে উস্কানি, এখন নির্বাচিত সরকারকে পরীক্ষা করা হচ্ছে'

ওই এলাকার লাল কুয়ান অক্ট্রয় নম্বর 3-এর বাসিন্দাদের আস্থা রয়েছে দিল্লি জল বোর্ডের ট্যাঙ্কারের ওপর। তবে এলাকায় ট্যাঙ্কার আসা সত্ত্বেও সব মানুষ পর্যাপ্ত পানি পান না। স্থানীয় লোকজনের অভিযোগ, ট্যাঙ্কার চলে আসে প্রধান সড়কে। রাস্তায় মানুষ ট্যাঙ্কার আসার খবর পায় না। তারা যখন বাইরে আসে, তখন ট্যাঙ্কারটি খালি। এমতাবস্থায় রাস্তার বাসিন্দাদের পানি নিয়ে চিন্তায় পড়তে হয়। লোকজন বলছেন, স্থানীয় বিধায়ক এলাকায় কল বসিয়েছেন কিন্তু জল আসছে না।

ওয়াজিরাবাদ ব্যারেজে পানির স্তর সর্বনিম্ন

দিল্লি সরকার বলছে, প্রচণ্ড গরমে পানির চাহিদা বেড়েছে। প্রতি বছর গরম বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে বাড়ছে পানির চাহিদাও। এতে সরবরাহে প্রভাব পড়ে। এমনকি হরিয়ানা সরকারও দিল্লিকে পর্যাপ্ত জল দিচ্ছে না। তবে মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়াল হরিয়ানা সরকারের কাছে দিল্লির মানুষের জন্য যমুনায় অতিরিক্ত জল ছেড়ে দেওয়ার আবেদন জানিয়েছেন। ওয়াজিরাবাদ ব্যারেজে পানির স্তর স্বাভাবিক ৬৭৪.৫ ফুট থেকে এ বছরের সর্বনিম্ন ৬৬৭.৭০ ফুটে নেমে এসেছে।

  ভারতের জন্য। আফ্রিকার বিপক্ষে সবচেয়ে বেশি উইকেট নিয়েছেন এই বোলার, জেনে নিন কোন নম্বরে অশ্বিন

দিল্লির খবর: দিল্লিতে যারা খোলামেলা মদ পান করেন সাবধান! এখন পর্যন্ত 160 জনেরও বেশি লোকের বিরুদ্ধে মামলা করা হয়েছে

,



Source link

Leave a Reply

Your email address will not be published.