রিপোর্ট- রোহিত ভাট

আলমোড়া। পাহাড়ের নারীদের জীবন কতটা কঠিন, তা ভাষায় বর্ণনা করা যাবে না। আজ আমরা আপনাদের বলতে যাচ্ছি পাহাড়ের সংগ্রামী নারীদের গল্প। আলমোড়ার মহিলারা সকাল-সন্ধ্যা বনে গিয়ে তাদের পোষা প্রাণীদের জন্য চর কাটা, কাঠ সংগ্রহ করা থেকে শুরু করে বাড়ির চুলা-চৌকা তৈরির যাবতীয় কাজ করেন। মহিলারা বন্য প্রাণীদের মধ্যে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে কাঠ সংগ্রহ, ঘাস ও পিরুল কাটা এবং বন থেকে এসে গৃহস্থালির অন্যান্য কাজ করে। এই দৈনন্দিন রুটিন পাহাড়ী মহিলাদের জীবনধারার একটি অংশ। এই হল উত্তরাখণ্ডের সমস্ত পাহাড়ি গ্রামের অবস্থা, যেখানে প্রত্যন্ত অঞ্চলের মহিলারা ঘাস কাটতে বনে যায় এবং নিজেরাই ঘরের সমস্ত কাজ করে।

যদি পার্বত্য রাজ্যের দৃষ্টিকোণ থেকে দেখা যায়, পাহাড়ের নারীরা স্বাবলম্বী। তাকে বলা হয় ‘পাহাড়ের মেরুদণ্ড’। তারা পাহাড়ের অর্থনীতির মেরুদণ্ড। গৃহস্থালির কাজের পাশাপাশি জঙ্গলে ঘাস কাটা, চুলা জ্বালানোর জন্য কাঠ সংগ্রহ করা এবং বাড়িতে আনার জন্য পশুখাদ্য ও কাঠের স্তূপ আনতে অনেক পরিশ্রম করতে হয়।

জঙ্গল থেকে আসার পর খাড়া চড়াই আর আঁকাবাঁকা পথ দিয়ে বাড়ি যাওয়ার পথ। আলমোড়াতেও মহিলারা দল বেঁধে বনে যান পশুখাদ্য ও কাঠের জন্য। দল বেঁধে যাওয়ার কারণ একটা, আরেকটা, বন্য প্রাণীদের ভয়ও কিছুটা কমে। পাহাড়ে শুয়োর বা বুনো শূকর একক মানুষকে বেশি আক্রমণ করে। পশুদের ভয় থাকা সত্ত্বেও, মহিলারা তাদের জীবন তাদের হাতের তালুতে রেখে তাদের পশুদের জন্য পশুখাদ্য আনতে প্রতিদিন বনে যান।

জানিয়ে রাখি, পাহাড়ে মহিলাদের ওপর বন্য প্রাণীর আক্রমণের খবরও প্রায়ই সামনে আসে। কখনো নারীরা গুরুতর আহত হয়, কখনো হামলায় প্রাণ হারায়।

মহিলারা অনেক কাজ করে
সকালে বাড়ির কাজ করা, খাবার রান্না করা, বাচ্চাদের স্কুলে পাঠানো, তাদের লালন-পালন করা এবং পোষা প্রাণীর যত্ন নেওয়া গুরুত্বপূর্ণ। এ ছাড়া বনে গিয়ে তাদের জন্য পশুখাদ্য আনা, চুলা জ্বালানোর জন্য কাঠ আনা, কৃষিকাজে স্বামীকে সাহায্য করা, সামাজিক দায়বদ্ধতা পালন, প্রয়োজনে শ্রমিক হিসেবে কাজ করা এবং সংসার চালানোর দায়িত্ব রয়েছে। পাহাড়ের নারীদের জীবন নিশ্চয়ই পাহাড়ের মতো চ্যালেঞ্জের চেয়ে কম নয়।

ট্যাগ: আলমোড়া সংবাদ

,



Source link

Previous articleগন্ধ ও শ্বাস নিতে কষ্ট হয়, নাকের হাড় বড় হওয়ার লক্ষণ, জেনে নিন আরও লক্ষণ
Next articleশামশেরা মুভি রিভিউ: রণবীর কাপুর মুগ্ধ করবে, তবে এই পুরানো গল্প এবং বিরক্তিকর ক্লাইম্যাক্স মোটেও নয়

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here